Home / খেলাধুলা / পেইন কিলার খেয়ে আমরা খেলি, অনেকেই এগুলো জানে নাঃ রিয়াদ

পেইন কিলার খেয়ে আমরা খেলি, অনেকেই এগুলো জানে নাঃ রিয়াদ

আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বাছাই পর্বের প্রথম ম্যাচে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে হেরে কঠোর সমালোচনার মুখে পড়ে যায় বাংলাদেশ। স্কটিশদের বিপক্ষে হেরে মূল পর্বে খেলা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়ে যায় টাইগাররা।

সেই ম্যাচের পর সিনিয়র ক্রিকেটারের সামর্থ্য নিয়ে প্রশ্ন তোলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। তিনি কাঠগড়ায় দাঁড় করান সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মুশফিকুর রহিমকে।

এদিকে বিসিবি সভাপতির সেই সমালোচনার কড়া জবাব দিয়েছেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। গতকাল বৃহস্পতিবার পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে দাপুটে জয়ে বিশ্বকাপের মূল পর্বের টিকিট নিশ্চিত করে বাংলাদেশ।

গতকাল খেলা শেষে অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ বলেন, আমাদের নিয়ে যেসব সমালোচনা হয় তা আমাদের স্পর্শ করে। আমরাও মানুষ, আমাদেরও অনুভূতি কাজ করে। আমাদের সবার পরিবার আছে, আমাদের বাবা-মায়েরা, বাচ্চারা টিভির সামনে বসে থাকেন। তারাও মন খারাপ করেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমও এখন হাতের নাগালে।

এ সময় রিয়াদ আরও বলেন, সমালোচনা তো হবেই। খারাপ খেলেছি, অবশ্যই সমালোচনা হবে। কেনো হবে না? কিন্তু সমালোচনার মাধ্যমে কেউ কাউকে খুব ছোট করে ফেললে খুব খারাপ লাগে। অনেক প্রশ্ন এসেছে।

সিনিয়র ক্রিকেটারদের স্ট্রাইক রেট নিয়ে কথা উঠেছে। আমরা তো চেষ্টা করেছি। চেষ্টার বাইরে তো আমাদের কাছে কিছু নেই। এরকম না যে আমরা চেষ্টা করিনি। আপ্রাণ চেষ্টা করেছি। হয়তো ফলাফল পক্ষে আনতে পারিনি। সমালোচনা কাম্য কিন্তু আরেকটু স্বাস্থ্যকর সমালোচনা হলে ভালো।

এদিকে দেশের হয়ে টি-টোয়েন্টিতে রেকর্ড সর্বোচ্চ ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়ে সবচেয়ে বেশি জয় উপহার দেয়া এই অধিনায়ক আরও বলেন, বাংলাদেশের জার্সি গায়ে দিলে আমাদেরও গর্ব হয়। সবারই ত্যাগ থাকে।

কারও ব্যথা থাকে, কারও অনেক ধরনের ইনজুরি থাকে। ওগুলো নিয়েই আমরা খেলি। দিনের পর দিন পেইন কিলার খেয়েই আমরা খেলি। হয়ত অনেকেই এগুলো জানে না। এজন্য কমিটমেন্ট নিয়ে কখনও প্রশ্ন করা ঠিক না।

Check Also

সরকারি চাকরি করেন এই ৭ ভারতীয় ক্রিকেটার

ভারতের কিংবদন্তি খেলোয়াড় সচিন তেন্ডুলকার এবং প্রাক্তন অধিনায়ক এমএস ধোনি তাদের খেলার জন্যে বিশ্বে যতটা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *